মেয়েদের জন্য যে ৪ ধরনের সাজ সজ্জা ইসলাম নিষিদ্ধ করেছে!! সকল মুসলিমের জানা উচিৎ!


ব্যবহারগত দিক থেকে সাজসজ্জা তিন প্রকার। যথা- ক. মুবাহ সাজসজ্জা, খ. মুস্তাহাব সাজসজ্জা, গ. হারাম সাজসজ্জা।

ক. মুবাহ বা বৈধ সাজসজ্জা : এটা এমন সাজসজ্জা যা শরী‘আতে বৈধ এবং করার ব্যাপারে শরী‘আত নারীকে অনুমতি প্রদান করেছে। এর অন্তর্ভুক্ত হচ্ছে যথাযোগ্য স্থানে তথা স্বামী ও মাহরামের নিকটে নারীর সৌন্দর্যের প্রকাশ, রেশমী বস্ত্র ও অলংকার পরিধান, আতর বা সুগন্ধি ব্যবহার ইত্যাদি। এই মুবাহ বা বৈধ সাজসজ্জাকারী ছওয়াব পায় না এবং এটা পরিহার করার কারণে সে গোনাহগারও হয় না।

খ. মুস্তাহাব সাজসজ্জা : এটা এমন সাজসজ্জা যা করতে শরী‘আতে উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত করা হয়েছে। এ পর্যায়ের সাজসজ্জার মধ্যে অন্তর্ভুক্ত অভ্যাসগত সুন্নাত সমূহ। যেমন গোফ খাটো করা, দাড়ি ছেড়ে দেওয়া, মিসওয়াক করা, (ওযূর সময়) নাকে পানি দিয়ে নাক ঝাড়া, নখ ছোট করা, আঙ্গুলের মাঝে খিলাল করা, বগলের লোম উপড়ানো, নাভীর নীচের লোম কাটা, পানি দ্বারা সৌচকার্য সম্পাদন করা ইত্যাদি।[1]

মুস্তাহাব বলতে বুঝায় যা করলে নেকী আছে। কিন্তু তা ত্যাগ করলে শাস্তি হবে না।

গ. হারাম সাজসজ্জা : এটা এমন সাজসজ্জা যা শরী‘আতে নিষিদ্ধ, যার ব্যাপারে হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করা হয়েছে। যেমন ভ্রূ উপড়ানো, নকল চুল লাগানো, পুরুষ ও কাফিরদের সাদৃশ্যপূর্ণ পোষাক পরিধান করা ইত্যাদি। হারাম হচ্ছে যা করলে শাস্তি দেওয়া হয় এবং শরী‘আতের নির্দেশ পালনার্থে তা ত্যাগ করলে নেকী অর্জিত হয়।

সাজসজ্জা ও অপচয় : ইসলাম মধ্যপন্থী জীবন ব্যবস্থা। জীবনের সর্বক্ষেত্রে মধ্যপন্থী হওয়াকে ইসলাম পসন্দ করে। যুবতীরা সাজসজ্জা ও সৌন্দর্য বর্ধক কাজ করতে পসন্দ করে। কিন্তু এক্ষেত্রে মধ্যপন্থী ও মিতব্যয়ী হওয়া যরূরী। যারা অপচয় না করে পানাহার ও পরিচ্ছদ গ্রহণ করে তাদের প্রশংসা করে আল্লাহ বলেন,وَالَّذِيْنَ إِذَا أَنْفَقُوْا لَمْ يُسْرِفُوْا وَلَمْ يَقْتُرُوْا وَكَانَ بَيْنَ ذَلِكَ قَوَامًا- ‘তারা যখন ব্যয় করে, তখন অপব্যয় করে না বা কৃপণতা করে না। বরং তারা এতদুভয়ের মধ্যবর্তী অবস্থায় থাকে’ (ফুরক্বান ২৫/৬৭)।

রাসূল (ছাঃ) বলেন,كُلُوْا وَاشْرَبُوْا وَالْبَسُوْا وَتَصَدَّقُوْا، فِىْ غَيْرِ إِسْرَافٍ وَلاَ مَخِيْلَةٍ ‘তোমরা পানাহার করো, পোষাক পরিধান করো এবং দান-খয়রাত করো অপচয় না করে এবং অহংকার মুক্ত হয়ে’।[2] ইবনে আববাস (রাঃ) বলেন,كُلْ مَا شِئْتَ وَالْبَسْ مَا شِئْتَ مَا أَخْطَأَتْكَ اثْنَتَانِ سَرَفٌ أَوْ مَخِيْلَةٌ ‘যা ইচ্ছা খাও ও পরিধান কর, তবে যেন দু’টি জিনিস তোমাকে ত্রুটিযুক্ত না করে- অপচয় ও অহংকার’।[3]

সুতরাং পরিমিত খরচের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় বৈধ সাজসজ্জা করা মুসলিম নারীদের জন্য কর্তব্য। কিন্তু এসব সাজসজ্জায় অহংকার যুক্ত হ’লে তা হারাম হয়ে যাবে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Have any Question or Comment?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *